শেখ হাসিনার নির্দেশে নির্বাচন করছেন শেখ সালাহ্উদ্দিন জুয়েল

621

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এঁর ভ্রাতুষ্পুত্র ও বাগেরহাট-১ আসনের সংসদ সদস্য শেখ হেলাল উদ্দিন বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত ধরে বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের মহাসড়কে। আওয়ামী লীগ পুনরায় ক্ষমতায় আসলে বাংলাদেশ রূপান্তর হবে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এঁর স্বপ্নের সোনার বাংলায়। আরও বলেন, দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের উন্নয়নে শেখ হাসিনা যা করেছেন অতীতে কোনো সরকার তা করেনি। পদ্মাসেতু নির্মাণ কাজ শেষ হলে এ অঞ্চলের চেহারা পাল্টে যাবে। উন্নয়নের এ ধারা অব্যাহত রাখতে হলে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাকে চতুর্থবারের মতো প্রধানমন্ত্রী করতে হবে। তিনি বলেন,  নৌকা হচ্ছে শান্তি, সমৃৃদ্ধি ও উন্নয়নের প্রতীক। নৌকায় ভোট দিয়ে মানুষ কখনও বঞ্চিত হয়নি। সকল ভেদাভেদ ভুলে নেতা-কর্মীদের ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, সংগঠনকে আরও গতিশীল করতে হবে। আরও বলেন, খুলনা-২ আসনে শেখ হাসিনার নির্দেশে শেখ সালাহউদ্দিন জুয়েল নির্বাচন করছে। শেখ হাসিনাকে বিজয়ী করতে সকল নেতা-কর্মীকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। আরও বলেন, একই সাথে খুলনার সকল আসনে নৌকার প্রার্থীর বিজয় নিশ্চিত করতে কাজ করতে হবে। তিনি বলেন, খুলনাকে মাদক, চাঁদাবাজ, ভূমিদস্যু ও সন্ত্রাস মুক্ত করা হবে। যারা মাদক ব্যবসা, চাঁদাবাজী, সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের সাথে জড়িত থাকবে এবং যাদের নামে এসব অভিযোগ আসবে তাদের বিরুদ্ধে শুধু সাংগঠনিক ব্যবস্থাই নয়; আইনগত ব্যবস্থাও গ্রহণ করা হবে।
গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায়, দলীয় কার্যালয়ে নগর আ’লীগ আয়োজিত দলীয় নেতৃবৃন্দের সাথে মতবিনিময়কালে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন। সভাপতিত্ব করেন নগর  আ’লীগের সভাপতি ও সিটি মেয়র আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক। বিশেষ অতিথি ছিলেন আ’লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য এস এম কামাল হোসেন। বক্তৃতা করেন নগর আ’লীগের  সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মিজানুর রহমান মিজান এমপি। নগর আ’লীগের দপ্তর সম্পাদক মোঃ মুন্সি মাহবুব আলম সোহাগের পরিচালনায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন আ’লীগ নেতা এড. চিশতি সোহরাব হোসেন শিকদার, কাজি আমিনুল হক, শেখ হায়দার আলী, কাজী এনায়েত হোসেন, বেগ লিয়াকত আলী, মল্লিক আবিদ হোসেন কবির, এম ডিএ বাবুল রানা, এড. আইয়ুব আলী শেখ, জামাল উদ্দিন বাচ্চু, এড. মোঃ সাইফুল ইসলাম, তসলিম আহমেদ আশা। সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আ’লীগ নেতা নুর ইসলাম বন্দ, শেখ মোঃ ফারুক আহমেদ, শ্যামল সিংহ রায়, মকবুল হোসেন মিন্টু, শেখ ফজলুল হক, কাউন্সিলর জেড এ মাহমুদ ডন, ফেরদৌস আলম চাঁন ফারাজী, এড. খন্দকার মজিবর রহমান, এড. অলোকা নন্দা দাস, অধ্যাপক আলমগীর কবীর, কাউন্সিলর আলী আকবর টিপু, হাফেজ মোঃ শামীম, মোঃ মফিদুল ইসলাম টুটুল, শেখ নুর মোহাম্মদ, মোঃ শহিদুল ইসলাম, মোজাম্মেল হক হাওলাদার, কাউন্সিলর ফকির সাইফুল ইসলাম, শহিদুল ইসলাম বন্দ, আলী আজগর মিন্টু, এড. সুলতানা রহমান শিল্পী, কাউন্সিলর খুরশীদ আহমেদ টোনা, এম এম ওবায়েদুর রহমান, হাজী নুরুজ্জামান, আবুল কাশেম মোল্লা, রনজিত কুমার ঘোষ, বিএম সজীব, শেখ মোঃ জাহাঙ্গীর আলম, এস এম আসাদুজ্জামান রাসেল, মুন্সি আইয়ুব আলী, ফেরদৌস হোসেন লাবু, জামিরুল হুদা জহর, মঈনুল ইসলাম নাসির, সেলিম আহমেদ, এনায়েত আলী আলো কাজী, শেখ ফারুক হোসেন, চৌধুরী মিনহাজ উজ্জামান সজল, আব্দুল হাই পলাশ, জাহিদুল হক, মুক্তিযোদ্ধা হাফিজুর রহমান, শেখ আবিদ উল্লাহ, শেখ নুর ইসলাম, কাউন্সিলর মুন্সি আব্দুল ওয়াদুদ, ডাঃ মুজিবুর রহমান, গাজী মোশাররফ হোসেন, বাদল সরদার, ফয়েজুল ইসলাম টিটো, আতাউর রহমান শিকদার রাজু, শেখ মোঃ রুহুল আমিন, মোঃ শিহাব উদ্দিন, ইউসুফ আলী খান, শাহজাহান জোমাদ্দার, মোঃ মোতালেব মিয়া, হায়দার আলী মোল্লা, আব্দুল জব্বার, মোঃ জাকির হোসেন হাওলাদার, জিয়াউল আলম খান খোকন, মহাসিনুর রহমান আফরোজ, মোঃ জাকির হোসেন, সাফায়াত হোসেন প্যারেট, খোন্দকার বাহাউদ্দিন, সরদার আব্দুল হালিম। সূত্র ; সময়ের খবর