খুলনার শিরোমণি চক্ষু হাসপাতালের পরিচালকের বিরুদ্ধে দূর্নীতির অভিযোগ

343
মোঃ আল আমিন খান, খুলনা ব্যুরো
সোমবার সকাল ৮ টায় খুলনার শিরোমণি বিএনএসবি চক্ষু হাসপাতালের এ্যাডমিনিস্ট্রেটর মাহামুদুল হাসান তারিফ ফেন্সিডিলসহ আটকের ঘটনায় তাকে চাকুরীচ্যুত এবং হাসপাতালের পরিচালকের অপসারণসহ বিভিন্ন অনিয়ম ও দূর্নীতির অভিযোগে পরিচালক ডাঃ আঃ মান্নানকে অবরুদ্ধ করে রাখে। প্রতিষ্ঠানের ডাক্তার-কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা  পরে সকাল ১০টায় স্থানিয় জনপ্রতিনিধি ও হাসপাতালের ম্যানিজিং কমিটির সদস্যদের সুষ্ট সমাধানের আশ্বাসে কাজে ফিরে যায়। বেলা সাড়ে ১০টায় উভয় পক্ষের সাথে বৈঠক করেন ম্যানিজিং কমিটির সদস্যরা। হাসপাতালের এ্যাডমিনিস্ট্রেটর মাহামুদুল হাসান তারিফ ফেন্সিডিলসহ আটকের খবর পত্রিকারয় প্রকাশের পর এবং মাদকদ্রব আইনের মামলায় মাহামুদ জেল হাজতে অবস্থান করায় ৮দিন অফিসে অনুপস্থিত থাকায় তার বিরুদ্ধে কর্তৃপক্ষ কোন ব্যবস্থা গ্রহন না করায় হাসপাতালের সিনিয়র কনসালটেন্ট ডা:নজরুল ইসলাম, ডাঃ সাইফুর রহমানসহ প্রতিষ্ঠানের ডাক্তার-কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা হাসপাতালের পরিচালকের কক্ষে প্রবেশ করে তাকে অবরুদ্ধ করে মাহমুদুল হাসানকে প্রতিষ্ঠানের সুনাম ক্ষুন্ন করার অপরাধে এবং প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন অনিয়ম ও দূর্নীতি চিত্র পরিচালকের কাছে তুলে ধরে অবিলম্বে মাহমুদুলকে চাকুরীচ্যুৎ করার দাবী জানালে পরিচালক তাদের দাবী না মানায় উপস্থিত সকলে পরিচালকের অপসারণ দাবী করেন। এ সময় ডাক্তার নজরুল বলেন বর্তমান পরিচালক প্রতিষ্ঠানটি চালাতে সম্পুর্ণ অক্ষম তিনি ব্যক্তি বিশেষের পরামর্শে সিনিয়র ডাক্তারদের বাদ দিয়ে জুনিয়র ডাক্তার এমনকি অনেক সময় শিক্ষানবিশ ডাক্তার দিয়ে গুরুত্বপুর্ণ অপারেশন করা হয়। এছাড়া ডাক্তারদের রুম বরাদ্ধে বিভিন্ন অনিয়মের কথা তুলে ধরেন। ডাঃ সাইফুর রহমান বলেন ফেন্সিডিল সহ আটককৃত মাহমুদুলের কু-প্রস্তাবে রাজি না হওয়ার প্রতিষ্ঠানে এক ষ্টাফকে চাকুরীচ্যুৎ করা হয়েছে। এছাড়া পরিচালকের সহায়তায় কোন কারণ ছাড়াই একজনকে চাকুরীচ্যুৎ এবং কতিপয় ব্যক্তির পদন্নতিসহ নানা অনিয়মের সাথে জড়িয়ে পড়ে। তিনি বলেন এক সময়ের সুনাম ধন্য প্রতিষ্ঠান কতিপয় ব্যক্তি এবং অদক্ষ পরিচালকের জন্য ধ্বংশ হতে চলেছে।হাসপাতালের ম্যানিজিং কমিটির সদস্য ফুলতলা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্জ শেখ আকরাম হেসেন, খুলনা জেলা আ’লীগের সহ-সভাপতি ডিএমএ সালাম, খুলনা জেলা আওয়ামীলীগের সম্পাদিকা হালিমা ইসলাম এবং মহানগর আ’লীগের সহ-সভাপতি বেগ লিয়াকত আলী ঘটনাস্থলের এসে উভয় পক্ষের সাথে বৈঠক করেন। বৈঠক ম্যানিজিং কমিটি পরিচালককে চেয়ারম্যানের সাথে আলোচনা করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার আহবান জানিয়ে আন্দোলনকারীদের কাজে ফিরে যেতে বলেছেন। এ বিষয়ে হাসপাতালের পরিচালক ডাঃ আঃ হান্নান বলেন উর্ধতন কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া মাহমুদুলের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেওয়া সম্বব হচ্ছেনা।