“অব্যক্ত ব্যথা”   ।। কবি : মোঃ শামসুল আলম, পিএমজি, দক্ষিণাঞ্চল খুলনা।

396

      “অব্যক্ত ব্যথা” ।।

                 কবি : মোঃ শামসুল আলম

                                  পিএমজি, দক্ষিণাঞ্চল, খুলনা।      

 হৃদয়ে অস্ফূট বেদনার স্পন্দন,

অদৃশ্য  করোনার নিষ্ঠুর ছোবলে স্বজন হারার হতাশ ক্রন্দন।

সন্তানহারা মায়ের আহাজারি গগনবিদারী আর্তনাদ,

প্রতিটি মানুষের হৃদয় ছুঁয়েছে অনুভূতির আঘাত।

১৩ বছরের ভালোবাসার জীবনে পড়েছে আচমকা খিল,

প্রচণ্ড ঝড়ে তছনছ যেন সেই চোখের জলের অমৃত নিল।

করো না প্রান্তরে ছড়ানো ছিটানো ঝঞ্ঝার জলোচ্ছ্বাস,

দেশ বিদেশ বিভুঁইয়ে আপনজনের ভিতরে নিরন্তর দীর্ঘশ্বাস।

হারাইয়াছে শিশুর চঞ্চলতা দুচোখে ভয়ের হাতছানি,

অপলক চোখে চেয়ে থাকে শুধু ফেটে যায় বুক খানি।

প্রতিটি মুহূর্ত কাটে বিভীষিকাময় শঙ্কা, এই বুঝি মৃত্যু হবে,

বিশ্বজুড়ে লাশের আনাগোনায় মৃত্যুর মিছিলে কি আর বেঁচে থাকবে?

সম্পর্কের মায়ার বন্ধন কেবলই থমকে দাঁড়ায়,

চেনা মুখ অচেনা রূপে সাহায্যের হাত বাড়ায়।

সন্তান থাকে অপেক্ষায় কখন বাবা ঘরে ফেরে,

অসহায় শিশু বোঝেনা কিছু প্রতীক্ষায় কাটে নীড়ে।

চেনা পৃথিবী ওলট পালট ভালোবাসার স্পর্শ বিলীন,

দিগন্তের ওপারে বন্দিজীবন হয়েছে কেবল ই মলিন।

ভালোবাসার অটুট বন্ধন নিরবে ঝরে পড়ে হিমশীতল ঘরে,

জীবন সায়াহ্নে বিধবা বেশে বেঁচে থাকার চেষ্টা খড়কুটো আঁকড়ে ধরে।

রাত জাগা জোনাকিরা গুনগুন গানে মগ্ন,

নির্ঘুম রাতে সারা অবয়ব জুড়ে এক অজানা দুঃস্বপ্ন।

কত পিতা দিল হৃদয় উজার কত বোন দিল সেবা,

তাদের নাম শোভা পাবে কিনা স্মৃতিস্তম্ভে তা জানে কে বা?

জীবন এভাবে ওলট পালট হয়ে যাবে ভাবি নি কেউ,

খা খা সমুদ্রসৈকতে আছড়ে পড়ে শব্দহীন বেদনার ঢেউ।

যে ছিল ডাক্তার সেবায় উজ্জল গরিবের গৌরব,

কালবৈশাখীর কোন এক আধারে চিরতরে হল নিরব।

ডাক্তার নার্স সম্মুখ যোদ্ধা মানবতার সেবায় নিবেদিত প্রাণ,

সব ছেড়ে প্রতিজ্ঞা করে বাঁচাবে জীবন তারাই বিবেকবান।

সামরিক-বেসামরিক পুলিশ মহান আদর্শে সাহসী সৈনিক,

অকাতরে জীবন বিলিয়ে দিছে তারা গর্বিত দৈনিক।

কে মরিবে? কে বাঁচাবে? জানে না তো কেউ মহামারী দুর্যোগে,

তারপরও থেমে নেই কিছু ভন্ড লোভী মাতোয়ারা সীমাহীন সম্ভোগে।

এখন কেবল অপেক্ষায় থাকা কখন কার পালা,

হয়তো মিথ্যা ঔষধ খোঁজাখুঁজি আর ডাক্তার পাবার বৃথা চেষ্টায় সারাক্ষণ সারাবেলা।

হয়তো অবশেষে পাড়ি দেবে না ফেরার দেশে, যেটুকু স্মৃতি থেকে যাবে মায়াজালে শুধু প্রিয়ার আবেশে।