গোপালগঞ্জ নিজড়ায় কৃষক শাহিদুল ইসলামকে হত্যার চেষ্টা : থানায় মামলা

432

জেলা প্রতিনিধি (গোপালগঞ্জ)
গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার নিজড়া গ্রামে জমিজমা সংক্রান্তে পূর্ব শত্রুতার জেরধরে কৃষক শাহিদুল ইসলামকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা করে সন্ত্রাসীরা। সংশ্লিষ্ট থানায় মামলা দায়ের হলেও বিগত ১০দিনে এজাহারভুক্ত আসামীদের গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। এদিকে মামলার আসামীরা ধরা ছোঁয়ার বাইরে থেকে শাহিদুল ইসলামের পরিবারকে রীতিমত হুমকি দিয়ে আসছে মামলা তুলে নেওয়ার জন্য। তবে পুলিশি ভূমিকা অনেকটা রহস্যজনক থাকার কারণে যে কোন মুহর্তে অপ্রীতিকর ঘটনার সম্ভবনা রয়েছে।
মামলার বিবরীনতে জানা যায়, গত ১৪জুন রাত ৮ টার দিকে পাশ্ববর্তী পারকুল গ্রামে শাহিদুল ইসলাম ব্যক্তিগত কাজে যায়। আগে থেকে উৎপেতে থাকা রুবেল সরদার, ওহিদুল সরদার , আজিম সরদার সহ প্রায় ১০/১২ জনের একদল দূর্ধষ পেটোয়া বাহিনী শাহিদুলের উপর অতর্কিত হামলা চালায়। এ সময় তাদের কাছে থাকা ধারাল রাম দা, লাঠিসোঠা সহ অন্যান্য দেশীয় অস্ত্র দিয়ে শাহিদুলকে হত্যার চেষ্টা চালায়। দীর্ঘ সময় শাহিদুলের উপর নারকীয় তান্ডব চালিয়ে রুবেল ও অহিদুল ক্ষ্যান্ত হয়নি। শাহিদুলের মৃত্যু নিশ্চিত করার জন্য বুকসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে জখম করে। একপর্যায় কৃষক শাহিদুলের ডাক চিৎকারের স্থানীয়রা ঘটনাস্থলে আসলে রুবেল সরদার তাঁর দলবল নিয়ে পালিয়ে যায়। পরবর্তীতে মুমর্ষবস্থায় শাহিদুল ইসলামকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। বর্তমান খুমেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছে শাহিদুল ইসলাম। তবে জঘন্য এই বর্বর হামলা চালানোর একদিন পর অর্থাৎ ১৫ জুন রাতে আবারও শাহিদুল ইসলামের বাড়িতে অতর্কিত হামলা চালায় ওই সংঘবদ্ধ চক্রটি।
এ ঘটনায় ১৬ জুন শাহিদুল ইসলামের সন্তান মো. নুর ইসলাম সরদার বাদী হয়ে গোপালগঞ্জ সদর থানায় মামলা দায়ের করতে গেলে পুলিশ মামলা নিতে গড়িমসি করে । এক পর্যায় শাহিদুলের উপর হামলার ৪দিন পর গোপালগঞ্জ সদর থানায় মামলা দায়ের হয়েছে। যার মামলা নং ৩০। এঘটানায় ৯জনের নাম উল্লেখপূর্বক মামলা হয়েছে। এ মামলায় আসামীরা হচ্ছে রুবেল সরদার, ওহিদুল সরদার, ইফাদুল সরদার, হাফিজুর সরদার, আজিম সরদার, শামীম সরদার, শাহ আলম, হামিদুল সরদার, জুয়েল সরদার ।
এ ব্যাপারে কথা হয় তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই খয়বারের সাথে। তিনি জানান, আসামীদের গ্রেফতার করতে পুলিশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে। তবে হাসপাতাল থেকে মেডিকেল সনদ (এম.সি) আসলেই চার্জশীট দেওয়া হবে।
মামলার বাদি শাহিদুল ইসলামের পূত্র নূর ইসলাম সরদার জানান, আসামীদের বিরুদ্ধে এ হামলার আগে সাধারন ডায়রী (জিডি) করা হয়। আসামীরা অত্যান্ত দূর্ধষ। বিজ্ঞ আদালত যদি আসামীদের জামিন মঞ্জুর করেন, তাহলে আমাদের উপর আবারও মামলা উঠিয়ে নেওয়ার জন্য রুবেল ও তার দলবল হামলা চালাতে পারে।
বর্তমান শাহিদুল ইসলামের পুরো পরিবার আতংকের মধ্যে প্রতিটি রাত পার করছে। কারণ পুলিশ আসামীদের এখন পর্যন্ত আটক করতে পারেনি। যেকোন মুহুর্তে আরো বড় ধরনের হামলার আশংকা থেকে যাচ্ছে। ফলে আসামীদের আটক করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন ভুক্তভোগি শাহিদুল ইসলামের পরিবার।