কঠোর লকডাউনে খুলনা কোয়ান্টামের দাফন সেবা চলমান

18

খবর বিজ্ঞপ্তি
দেশজুড়ে চলছে কঠোর লকডাউন। আর এই লকডাউনের মধ্যেও করোনায় মৃতদেহের দাফন বা সৎকারে স্বতঃস্ফূর্তভাবে সক্রিয় রয়েছে দেশের অন্যতম স্বেচ্ছাসেবী প্রতিষ্ঠান কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশন খুলনা শাখার দাফন কার্যক্রম। ধর্মবর্ণনির্বিশেষে শেষ বিদায় জানাতে দিনে বা রাতে ২৪ ঘণ্টা ধর্মীয় মর্যাদা ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে দাফন বা সৎকারের কাজ করছেন এ সংগঠণের সদস্যরা। লকডাউনের মধ্যেও চলছে তাদের নিরলস মানবিক এ সেবা কার্যক্রম।
লকডাউনের মধ্যে বৃহস্পতিবারই চার জন মরদেহের শেষকৃত্যে অংশ নিয়েছেন সংগঠণটির দাফনকর্মীরা। এর মধ্যে খুলনা সদর হাসপাতাল থেকে একজন, খুলনা মেডিকেল থেকে একজন এবং বয়রা ও গগনবাবু রোডে বাসা থেকে দুজনের শেষকৃত্যে অংশ নেন স্বেচ্ছাসেবক দল। মৃতদের তিনজন কোভিড-১৯ এবং একজনের ছিল সাধারণ মৃত্যু। সদর হাসপাতাল থেকে মাধুরী মন্ডলকে (৫৩) আমাদের টিম গোসলশেষে রূপসা শ্মশানে নিয়ে দাহ করতে সরাসরি অংশ নেন। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত পর্যন্ত চলে এ সেবা কার্যক্রম।
গত বছর জুন থেকে খুলনায় করোনাভাইরাসে মারা যাওয়া মানুষের দাফন-সৎকারে কাজ করছে স্বেচ্ছাসেবী এ সংগঠনটি। ২ জুলাই পর্যন্ত খুলনা শাখার ব্যবস্থাপনায় প্রায় একশ’ ১০ জনের দাফন ও সৎকার সম্পন্ন হয়েছে। খুলনা শাখার তত্ত্বাবধানে গোপালগঞ্জ, বাগেরহাট, নড়াইল, সাতক্ষীরাতেও পরিচালিত হচ্ছে এ অঞ্চলের দাফন কার্যক্রম।
কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশন খুলনা শাখার প্রায় ৩০ জন স্বেচ্ছাসেবক করোনায় মৃতদেও দাফন বা সৎকারে মানবিক সেবা নিয়ে সবসময় প্রস্তুত রয়েছে। বিশেষ করে করোনার এই দুর্যোগকালেও মৃতদের স্বজনদের পাশে থেকে নিরলস সেবায় নিয়োজিত রয়েছে স্বেচ্ছাসেবকরা।
কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশন খুলনা শাখার দাফন কার্যক্রমের সমন্বয়ক মুস্তফা আশরাফ সিদ্দিকী জানান, আমরা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্যবিধি এবং ধর্মীয় ক্ষেত্রে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের দাফনবিধি মেনে কাজ করে থাকি। নারীদের পর্দার বিধান মেনে দাফন-কাফনের জন্যে রয়েছে আমাদের প্রশিক্ষিত নারী টিম। স্বাস্থ্যবিধি মেনে করোনায় মৃতের দাফনসংক্রান্ত যেকোনো প্রয়োজনে কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশন খুলনা শাখার ০১৭৪০-৯৩৯৯৯৯ নম্বরে যোগাযোগ করা যাবে।