ফকিরহাটে দুর্ধষ ডাকাতি 

35
বাদশা আলম- ফকিরহাট প্রতিনিধি,
বাগেরহাট জেলার ফকিরহাটে গভীর রাতে ঠিকাদারের বাড়িতে দুর্ধষ ডাকাতি হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার দিবাগত গভীর রাতে। এ ঘটনায় জেলা পুলিশ সুপারসহ প্রশাসনের সকল সর্বস্তরের কর্মকর্তাগণ ও অত্রএলকার জনপ্রতিনিধিরা ঘটনাস্থ পরিদর্শন করেছেন।
ভূক্তভোগী পরিবার ও এলাকাবাসি সুত্রে জানা যায়, ফকিরহাট উপজেলার বেতাগা ইউনিয়নের মহিষ প্রজনন ও উন্নয়ন খামার সংলগ্ন মোঃ শাহবুদ্দিন এর পুত্র  ঠিকাদার মোঃ কামাল হোসেনের নবনির্মিত দৃষ্টিদন্দন পাকা বসত বাড়ির গ্রিল কেটে গভীর রাতে অস্ত্রধারী ডাকাত দল ঘরে প্রবেশ করে। এ সময় ঠিকাদার কামাল তার বৃদ্ধপিতা, স্ত্রী ও শিশু বঁাচ্চাসহ সকলকে মারপিটসহ অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে সকলকে রশি দিয়ে বেধেঁ এক রুমে আটক করে রাখে।
ডাকাত দল তাদের ঘরে থাকা নগত ১ লক্ষ্য ৮০ হাজার টাকা ও লকারে থাকা ৪ পিস স্বর্ণের চেন,  ৫ জোড়া কানের দুল, ৪ আংটি ও ২ টি রুলিসহ গুরতপূর্ণ কাজপত্র হাতিয়ে নেয়। ডাকাত দল আনুমানিক রাত ১টায় ঘরে প্রবেশ করে ডাকাতিকৃত মালামাল নেওয়ার পর তারা উল্লাশ করে ফ্রিজে ও কিচেন রুমে থাকা খাবার খেতে থাকে। দীর্ঘ সময় উল্লাশের পর গৃহকর্তা ডাকাতদের কড়জোরে বলে আপনাদের কার্যক্রম সম্পন্ন হলে প্রয়োজনে আমার মটর সাইকেলটি নিয়ে  আমাদের বঁাধন খুলে দিন আমার ছোট বাচ্চারা ভয়ে আতষ্কে রয়েছে, প্রতি উত্তরে ডাকাত দল বলে চুপ থাক আমরা মটর সাইকেল নেই না, যা তোর এখান থেকে নিয়েছি ঠিক তাই তাই উল্লেখ করবি, আমাদের ভাগের ব্যাপার রয়েছে, আমরা সকাল হলে বের হবো। উল্লেখ্য ন্যাক্কার জনক বিষয় হলো ডাকাতিদল ডাকাতিকালে তারা সকল রুমের আলো জ্বালিয়ে নেয়, এ সময় তারা সকলেই প্রায় উলঙ্গ ছিলো। শুধু মাত্র একটি সিঙ্গেল আন্ডার প্যান্ট ছাড়া তাদের পরনে আর কিছুই ছিলো না। যে কথা সেই কাজ, তারা সকাল হলেই ২টা মটর সাইকেল ও একটি সাদা রংয়ের প্রাইভেট কারে তারা ঘটনাস্থল ত্যাগ করে।
ডাকাত দল চলে যাওয়ার পর তাদের আত্মচিৎকারে প্রতিবেশিরা ছুটে এসে বাধন খুলে দেয়। সংবাদ পেয়ে এলাকাবাসি, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান স্বপনদাস, বাগেরহাট জেলা পুলিশ সুপার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, পুলিশের গোয়েন্দা শাখার কর্মকর্তা, ফকিরহাট মডেল থানার অফিসার ইনচার্জসহ অন্যান্য কর্মকর্তাগণ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। ঠিকাদার কামাল জানান, আমি আইনগত সহযোগিতা পাওয়ার জন্য প্রশাসনের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করছি। এ ব্যাপারে ফকিরহাট মডেল থানার ওসি খাইরুল আনাম জানান, ভুক্তভোগী অভিযোগ দায়ের করলে আমি মামলা নথিভূক্ত করবো। তিনি আরো জানান এ ঘটনায় আসামিদের প্রায় শনাক্ত করেছি, অচিরেই তারা গ্রেফতার হবে।