পর্যটন মানুষকে ইতিহাস-ঐতিহ্যের বিষয়ে সচেতন করেঃ খুলনা জেলা প্রশাসক

11
মোঃ আল আমিন খান – সিনিয়র স্টাফ রিপোর্টার 
সোমবার দুপুরে খুলনা জেলা প্রশাসকের সম্মেলনকক্ষে বিশ্ব পর্যটন দিবস-২০২১ উপলক্ষ্যে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক মোঃ মনিরুজ্জামান তালুকদার। বিশ্ব পর্যটন দিবসে এবারের প্রতিপাদ্য অন্তর্ভূক্তিমূলক প্রবৃদ্ধিতে পর্যটন। প্রধান অতিথির বক্তৃতায় জেলা প্রশাসক বলেন, পর্যটন মানুষকে ইতিহাস-ঐতিহ্যের বিষয়ে সচেতন করে। পাশাপাশি অর্থনীতিতে পর্যটন বিশেষ অবদান রাখতে পারে। খুলনা জেলার পর্যটনের আকর্ষণ বৃদ্ধি করতে জেলার ঐতিহাসিক নিদর্শনগুলো সবার সামনে তুলে ধরা প্রয়োজন। সুন্দরবনে পরিবেশবান্ধব পর্যটনের জন্য কার্যকর পরিকল্পনা দরকার। সভায় জানানো হয়, করোনাকালে বিশ্ব পর্যটনের ৯৫ শতাংশ হ্রাস পেয়েছিলো। এতে ২০২১ সালের শেষ নাগাদ বৈশ্বিক আর্থিক ক্ষতির পরিমাণ চার বিলিয়ন মার্কিন ডলার। বিশে^র বিভিন্ন দেশ পর্যটনের মাধ্যমে আর্থিকভাবে লাভবান হয়। পর্যটন খাত হতে যুক্তরাষ্ট্র বছরে ২১১ মিলিয়ন ডলার ও ভারত বছরে ২৭ মিলিয়ন মার্কিন ডলার অর্জন করে। হংকং, ব্যাংক, ম্যাকাও ও সিঙ্গাপুরের মত অঞ্চলে জাতীয় আয়ের ৫ থেকে ৯ শতাংশ আসে পর্যটন খাত হতে। বাংলাদেশের সুন্দরবনে ২০১৭-১৮ অর্থ বছরে দেশি-বিদেশি মিলে মোট দুই লাখ ২২ হাজার ১৭ জন পর্যটক ভ্রমণ করেন এবং পর্যটকদের থেকে সরকার প্রায় এক কোটি ৯৭ লাখ টাকার রাজস্ব অর্জন করে।
আলোচনা সভায় মূলপ্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সুন্দরবন পশ্চিম বন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা ড. আবু নাসের মোহসিন হোসেন। খুলনার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোঃ ইউসুপ আলীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রতœতত্ত¡ অধিদপ্তরের আঞ্চলিক পরিচালক আফরোজা খান মিতা, খুলনা প্রেসক্লাবের সভাপতি এসএম জাহিদ হোসেন, বীরমুক্তিযোদ্ধা মোঃ আলমগীর কবির, ট্যুর অপারেটর এসোসিয়েশন অব সুন্দরবনের সাধারণ সম্পাদক নাজমুল আজম ডেভিড প্রমুখ বক্তৃতা করেন। অনুষ্ঠান শেষে পর্যটন দিবস উপলক্ষ্যে আয়োজিত চিত্রাংকন প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়।