নওয়াপাড়া রেলওয়ের সম্পদ রক্ষণাবেক্ষণে ব্যর্থ  কর্তৃপক্ষ

61
ডেস্ক রিপোর্ট।।
যশোরের নওয়াপাড়া রেলওয়ে ষ্টেশনের সম্পদ রক্ষণাবেক্ষণে ব্যর্থ নওয়াপাড়া রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। সরেজমিনে দেখা গেছে, নওয়াপাড়া ষ্টেশনের আওতাধীন এলাকায় বহুদিন যাবৎ প্রভাবশালী ও সুবিধাবাদী ব্যক্তিরা নওয়াপাড়া রেলওয়ে কর্তৃপক্ষকে মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে ও রাজনৈতিক প্রভাবকে কাজে লাগিয়ে কোন নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে অবৈধ ভাবে  স্বায়ী, অস্থায়ী স্থাপনা নির্মাণ করে বহাল তবিয়তে ব্যবসা বাণিজ্য পরিচালনা, রেলওয়ের জায়গা ভাড়া দিয়ে হাট বাজার পরিচালনা ও নিয়ন্ত্রণ করছে একটি সিন্ডিকেট।
এতে একদিকে রেলওয়ের সম্পত্তি যেমন বেহাত হচ্ছে, অন্যদিকে রেলওয়ের চলাচলে ঝুঁকি বাড়ছে।
একটি পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, রাজঘাট থেকে ভাঙ্গাগেট পর্যন্ত রেলওয়ের জায়গা অবৈধ দখল করে মার্কেট, নামে-বেনামে রাজনৈতিক কার্যালয় , ওয়েব্রীজ, বসত বাড়ি, সার-কয়লার ড্যাম্প, দোকানঘর এমন-কি নিয়মিত বসছে হাঁট-বাজার। এই হাঁট-বাজারগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল নওয়াপাড়া নূরবাগ এলাকার জুতা পট্টি, বটতলা ছাগল হাট।
রেলওয়ের জায়গার উপর স্থায়ীভাবে যে কোন স্থাপনা নির্মাণে বিধি নিষেধ থাকলেও তা অমান্য করে প্রভাবশালী ব্যক্তিরা দ্বি-তল বিলাস বহুল ভবন নির্মাণ করে ব্যবসা-বাণিজ্য পরিচালনা করছে।  অন্যদিকে রেলওয়ে ওয়াগেনর(মালামাল বহনকারী ট্রেন)  মালামাল লোড-আনলোড করার জন্য ফেরিঘাট – নোনা ঘাট  রেলওয়ে পাটি’র  পাশ দিয়ে অবৈধভাবে স্থাপনা তৈরি করে অভয়নগর ট্রান্সপোর্ট, সঞ্জয় ট্রেডিং, মোল্যা ট্রেডার্স, মোল্যা ট্রান্সপোর্ট- পোটন ট্রেডিং সহ
বেশ কিছু  ব্যবসা প্রতিষ্ঠান।
সবচেয়ে আশ্চর্যের বিষয় হলো ওই এলাকার  রেল পাটি ভরাট করে সেখানে গাড়ি পার্কিং’র  করা হচ্ছে।
এ সকল প্রতিষ্ঠান বলছে তারা রেলওয়ে থেকে বন্দোবস্ত নিয়েছে। অথচ  স্লিপারের ১০” ফুটের মধ্যে কোন স্থাপনা নির্মাণের অনুমতি দেয় না রেলওয়ে।
জানা গেছে, রেলওয়ের কিছু অসাধু কর্মকর্তাকে ম্যানেজ করে চলছে এসকল দখল প্রতিযোগিতা।  উপরোক্ত বিষয়ে জানতে চাইলে  নওয়াপাড়া রেলওয়ের নিরাপত্তায় নিয়জিত  আরএনবি’র এস আই সোহাগ শর্মা বলেন, বিষয়টি রেলওয়ে ভূ-সম্পত্তি বিভাগের। স্টেশন  মাস্টার বুলবুল আহমেদ বলেন,ইতি মধ্য আমি বিষয়গুলো ঊর্ধ্বতন কর্মকতাদের অবহিত করেছি। রেলওয়ে ভূ-সম্পত্তি বিভাগের কানুনগো মনোয়ারুল ইসলাম বলেন, উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের সাথে আলোচনা করে শীঘ্রই উচ্ছেদে আইনী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।