বাগেরহাটে ফিরোজ হত্যা মামলার ৫ পলাতক আসামী গ্রেফতার

10

বাদশা আলম,  ফকিরহাট প্রতিনিধি।

র‌্যাব-৬, তার প্রতিষ্ঠাকাল থেকেই চাঁদাবাজ, সন্ত্রাসী, খুনী, ছিনতাইকারী, অপহরণকারী, প্রতারকচক্র গ্রেফতার, অবৈধ অস্ত্র গোলাবারুদ উদ্ধার এবং হত্যাকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের দৃষ্টান্ত স্থাপন করে জনগনের বিশ্বাস ও আস্থা অর্জন করেছে।

গত ১৭/১২/২০২১ ইং তারিখ সকাল অনুমান ১১.৩০ ঘটিকায় বাগেরহাট জেলার রামপাল থানাধীন শ্রীকলস গ্রাম এলাকায় “ফিরোজ শেখ”, সাং-কাষ্টবাড়ীয়া, থানা-রামপাল, জেলা-বাগেরহাট’কে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়। ঘটনার বিস্তারিত অনুসন্ধানে জানা যায়, ভিকটিম স্থানীয় একজন সাবেক চেয়ারম্যান এর সমর্থক এবং তার নিরাপত্তার কাজে নিয়োজিত থাকতো বিধায় হত্যাকারীরা সাবেক চেয়ারম্যানের প্রতিপক্ষ হওয়ায় সাবেক চেয়ারম্যান এর ক্ষতি করার জন্য ভিকটিম’কে হত্যা করার নীল নকশা তৈরী করে। এমতাবস্থায় গত ১৭/১২/২০২১ ইং তারিখ আনুমানিক সকাল ১০.৩০ ঘটিকার সময় ভিকটিম সাবেক চেয়ারম্যান এর সাথে কথাবার্তা শেষে সঙ্গীয় একই এলাকার হানিফ গাজী এবং আকবর গাজী নামক দুইজন ব্যক্তির সাথে মোটরসাইকেল যোগে নিজ বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা হয়। হত্যাকারীরা পূর্ব পরিকল্পনা ও হত্যার ষড়যন্ত্র অনুযায়ী সকাল অনুমান ১১.৩০ ঘটিকার সময় ভিকটিম বাগেরহাট জেলার রামপাল থানাধীন শ্রীকলস গ্রামস্থ জনৈক আবু সাঈদ শেখের বাড়ীর সামনে সরকারী পিচ ঢালা পাঁকা রাস্তায় পৌছালে হত্যাকারীরা দেশীয় অস্ত্র-শস্ত্রে সজ্জিত হয়ে ভিকটিম’কে অতর্কিতভাবে হামলা করে। পরবর্তীতে ভিকটিম জীবন বাঁচানোর জন্য দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করলে, হত্যাকারীরা পুনরায় ভিকটিম’কে ধরে ধারালো ছুরি, লোহার রড, রামদাসহ দেশীয় অস্ত্র দিয়ে ভিকটিম’কে আঘাত করে মারাত্মক রক্তাক্ত জখম করে। অতঃপর স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় ভিকটিম এবং তার সঙ্গী হানিফ’কে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে রামপাল স্বাস্থ্য কমপ্লক্সে নেওয়া হলে অবস্থা গুরুতর হওয়ায় ভিকটিম’কে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয় এবং দুপুর ০২.৩০ ঘটিকায় ভিকটিম মৃত্যুবরণ করে। পরবর্তীতে অদ্য ১৯/১২/২০২১ ইং তারিখ ভিকটিমের স্ত্রী বাদী হয়ে বাগেরহাট জেলার রামপাল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নং-০৮ তারিখ ১৯/১২/২০২১ ধারাঃ ১৪৩/৩৪১/৩২৩/৩২৫/ ৩২৬/ ৩০৭/ ৩০২/৩৪ পেনাল কোড।

বাগেরহাট জেলার রামপাল থানায় সংঘটিত এই হত্যাকান্ডটি বিভিন্ন ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়া, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এবং জনমনে ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করে। বহুল আলোচিত এবং চাঞ্চল্যকর হত্যার পর থেকেই বাগেরহাট জেলার বিভিন্ন স্থানে অপরাধীদের গ্রেফতারে র‌্যাব-৬, (স্পেশাল কোম্পানি) কর্তৃক গোয়েন্দা তৎপরতা ও গোয়েন্দা অভিযান বৃদ্ধি করা হয়। এরই ধারাবাহিকতায় ইং ১৯/১২/২০২১ তারিখ রাত ২২.৪৫ ঘটিকায় মেজর এম. রিফাত-বিন-আসাদ এবং লেঃ কমাঃ এম সারোয়ার হুসাইন এর নেতৃত্বে র‌্যাব-৬ (স্পেশাল কোম্পানি) খুলনার একটি বিশেষ আভিযানিক দল গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে বাগেরহাট জেলার রামপাল থানাধীন বিভিন্ন এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে চাঞ্চল্যকর “ফিরোজ শেখ”, হত্যা মামলার এজাহারভুক্ত আসামী ১। মোঃ বজলু শেখ(২৫), পিতা-মৃত কেরামত আলী ২। ইমরান শেখ(২২), পিতা-ইনছান শেখ, ৩। এনাম শেখ(৪২), পিতা-মৃত রজ্জব আলী শেখ ৪। সুমন শেখ(২১), পিতা-এনাম শেখ, ৫। সাগর গাজী(২২), পিতা-জিয়া গাজী, সর্ব সাং-কাষ্টবাড়িয়া, থানা-রামপাল, জেলা-বাগেরহাটদের’কে গ্রেফতার করে। উল্লেখ্য, উক্ত বহুল আলোচিত এবং চাঞ্চল্যকর হত্যা মামলায় জড়িত অন্যান্য আসামীদের’কে গ্রেফতারে র‌্যাবের গোয়েন্দা অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

গ্রেফতারকৃত আসামীদের’কে বাগেরহাট জেলার রামপাল থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।