সিভিল সার্জন বারবার সতর্ক করলেও ফুলতলার টিএইচও সরকারী গাড়ী ব্যাক্তিগতকাজে ব্যবহার করে যাচ্ছেন

301

ডেক্স রিপোর্ট।।

খুলনার ফুলতলা উপজেলা স্বাস্থ্য প.প কর্মকর্তা ডাঃ জেসমিন আরা ফুলতলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যোগদানের পর থেকে তাঁর জন্য বরাদ্দকৃত সরকারী গাড়ী ব্যক্তিকাজে ব্যবহার করে আসছেন। কখনও শপিং-এ আবার কখনও এয়ারপোর্টে যাওয়ার জন্য সরকারী গাড়ীটি ব্যবহার করেন। বিষয়টি নিয়ে খুলনার সিভিল সার্জন ডাঃ নিয়াজ মোহাম্মদ ফুলতলার ইউএইচ এন্ড এফপিও জেসমিন আরাকে সর্তক করলেও তিনি তাঁর নির্দেশনা উপেক্ষা করে সরকারী গাড়ীটি দেধারছে নিজস্ব কাজে ব্যবহার করে যাচ্ছেন।

তথ্যমতে, খুলনার বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ডাঃ মো. মনজুরুল মুরশিদ এর স্বাক্ষরিত চিঠি, যার স্মারক নং-২/২০২২/৪৬ (৭৯) তে স্পষ্ট নিদের্শনা রয়েছে সির্ভিল সার্জন,তত্বাবধায়ক ও উপজেলা স্বাস্থ্য প.প কর্মকর্তাগণ নিজ নিজ কর্মস্থলের বাইরে সরকারী গাড়ী ব্যবহার করতে পারবেন না। অথচ ফুলতলার এ স্বাস্থ্য কর্মকর্তা এই নির্দেশনাকে বৃদ্ধাঙ্গুল দেখিয়ে সরকারী গাড়ীরর তেল পুরিয়ে ব্যক্তিকাজে গাড়ী ব্যবহার করছেণ।

কথা হয় ফুলতলা উপজেলা স্বাস্থ্য প.প কর্মকর্তা ডাঃ জেসমিন আরার সাথে। তিনি বলেন, গাড়ী ব্যবহারের নিয়ম সম্পর্কে আমার জানা ছিল না, আপনারা যদি বলেন, তাহলে আমি আর ব্যবহার করব না।

খুলনার সিভিল সার্জন ডাঃ নিয়াজ মোহাম্মদ জানান, তাকে (জেসমিন আরা) একাধিক বার গাড়ী ব্যবহারের  বিষয়টি নিয়ে সতর্ক করলেও তারপরেও যখন শুনেছে না, সরকারী এ নিয়ম ভঙ্গ করলে অচীরেই তাঁর বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

দ্বিতীয় প্রতিবেদন আসছে..